এসএসসিতে গুরুদাসপুর উপজেলার প্রথম মিতু প্রশাসন ক্যাডারে চাকরি করতে চায়

0
395

গুরুদাসপুর প্রতিনিধিঃ   ২০২১ সালে এসএসসি পরীক্ষায় গুরুদাসপুর উপজেলায় প্রথম স্থান অধিকার করেছে মোছাঃ নাইমুন্নাহার মিতু ।   সে উপজেলার ধারাবারিষা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসিতে জিপিএ ৫.০০  (গোল্ডেন) পেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছে।  এসএসসি পরীক্ষায় ১৩০০ নম্বরের মধ্যে  তার প্রাপ্ত নং ১২৪৭ । মিতু উপজেলার ধারাবারিষা গ্রামের মৃত মন্টু  মিয়ার একমাত্র কন্যা।  ক্লাস ওয়ানের বার্ষিক পরীক্ষা চলাকালীন সময় মিতুর বাবা মারা গেলেও লেখা পড়ার প্রতি অদম্য আগ্রহ এবং মনোবল থাকার জন্য বাবার মৃত্যুর পর তার মা মোছাঃ আসমা খাতুন অনেক  কষ্ট করে মিতুকে লেখাপড়া করাচ্ছেন। ফলশ্রুতিতে মিতু লেখাপড়ার শুরু থেকেই তার মেধার ও সামর্থের প্রমাণ দিচ্ছে।  মেধাবী মিতু ২০১৫ সালে পিইসি’তে জিপিএ ৫ এবং ২০১৮ সালে জেএসসি’তে জিপিএ ৫ পেয়ে কৃতিত্বের সাথে উত্তীর্ণ হয়। সে প্রাথমিকে এবং জেএসসি’তে ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি লাভ করে এবং উভয় পরীক্ষায় উপজেলায় প্রথম স্থান অধিকার করে। মিতু জানায় সে অভাবের সংসারে বড় হয়েছে। মিতুর সম্পদ বলতে তার পিতার রেখে যাওয়া ১০ কাঠা জমি এবং নগদ ১লক্ষ টাকা। এইটুকু সম্পদ থেকেই মিতুর মা সাংসারিক খরচসহ মেয়ের লেখাপড়ার খরচ চালাচ্ছেন। মিতু জানায় তার এই সাফল্যের পিছনে রয়েছে মহান আল্লাহর অশেষ রহমত, নিজের কঠোর অনুশীলন ও তার মায়ের অক্লান্ত পরিশ্রম এবং শিক্ষকদের সহযোগিতা ও সঠিক দিকনির্দেশনা।  এছাড়া ফুফাতো ভাই স্কুল শিক্ষক মোঃ মাসুদুর রহমান ও ব্যাংকার সোহেল রানা, জেঠাত ভাই শাহরিয়ার ইকবালসহ শুভাকাঙ্ক্ষীদের অনুপ্রেরণা তাকে এগিয়ে যেতে সাহায্য করেছে।  লেখাপড়ার এইধারা বহাল রাখার জন্য মিতু দেশবাসীর দোয়া চায়। উচ্চ শিক্ষা শেষ করে ভবিষ্যতে মিতু প্রশাসনক্যাডারে যোগদান করে  দেশ এবং সমাজের পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর ভাগ্যোন্নয়নে নিরলসভাবে কাজকরতে চায়।

ধারাবারিষা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ শের-এ-আলম  বলেন , পিতৃহারা মিতু অনেক প্রতিকূলতা অতিক্রম করে কঠোর অধ্যাবসায়ের মাধ্যমে এই সফলতা অর্জন করেছে। তার এই সাফল্যে আমরা গর্বিত। আমরা সব সময় মিতুর পাশে ছিলাম এবং ভবিষ্যতেও থাকব । আমরা দোয়া করি মিতু যেন ওর কাঙ্খিত   লক্ষ্যে পৌছাতে পারে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে