করোনার উৎস জানতে উহান যাচ্ছেন বিজ্ঞানীরা

0
106

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) উৎস শনাক্তে তদন্তের লক্ষ্যে আগামী মাসে চীনের উহান শহরে যাবে ১০ জন আন্তর্জাতিক বিজ্ঞানীর একটি দল। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) এ কথা জানিয়েছে। এদিকে এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছে বেইজিং। খবর বিবিসির।

এর আগে বেইজিং এ বিষয়ে নিরপেক্ষ তদন্তকাজ পরিচালনা করতে দেওয়ার ব্যাপারে অস্বীকৃতি জানিয়ে আসছিল। শেষ পর্যন্ত কয়েক মাস ধরে সমঝোতা–প্রচেষ্টার পর বেইজিং উহানে ডব্লিউএইচওর প্রতিনিধিদের তদন্ত কাজে ঢুকতে দিতে সম্মতি প্রকাশ করেছে।

প্রকৃতপক্ষে এটি কোনো অপরাধী দেশকে খুঁজে বের করার চেষ্টা নয়; বরং আসলে কী ঘটেছে তা জেনে এর ওপর ভিত্তি করে ভবিষ্যতে কীভাবে আমরা সংক্রমণের ঝুঁকি কমাতে পারি, সেটিই দেখার বিষয় আমাদের।

উহান শহরের বন্য প্রাণীর কোনো বাজার থেকে এই ভাইরাসের সূত্রপাত বলে ধারণা করা হয়। এ সূত্র অনুসন্ধানের বিষয়টি নিয়ে বিভিন্ন দেশ, বিশেষত যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে চীনের উত্তেজনাও দেখা দেয়। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রশাসন ওই ভাইরাসের প্রাথমিক সংক্রমণের বিষয়টি চীন চেপে গেছে বলে অভিযোগ করেছে।

তদন্তের লক্ষ্য কী
ইতিমধ্যে উহান সফর করা ওই প্রতিনিধিদলের একজন সদস্য ও জীববিজ্ঞানী বার্তা সংস্থা এপিকে বলেছেন, উৎস সম্পর্কে কোনো অভিযোগ বিলিবণ্টন করা ডব্লিউএইচওর উদ্দেশ্য নয়। তাঁরা চান ভবিষ্যতে এ ভাইরাসের সংক্রমণ রোধ। এ বিষয়ে জার্মানির রবার্ট কোচ ইনস্টিটিউটের ফেবিয়ান লিন্ডার্টজ বলেন, ‘প্রকৃতপক্ষে এটি কোনো অপরাধী দেশকে খুঁজে বের করার চেষ্টা নয়; বরং আসলে কী ঘটেছে তা জেনে এর ওপর ভিত্তি করে ভবিষ্যতে কীভাবে আমরা সংক্রমণের ঝুঁকি কমাতে পারি, সেটিই দেখার বিষয় আমাদের।’
লিন্ডার্টজ আরও বলেন, এই ভাইরাস কখন ছড়ানো শুরু করে ও উহান শহর এর উৎস কি না, তা-ও খুঁজে বের করা হবে। চার থেকে পাঁচ সপ্তাহ তদন্তকাজ চলতে পারে বলে জানান তিনি।

কোথায় ও কখন ভাইরাসটি প্রথম শনাক্ত হয়
করোনা সংক্রমণের শুরুর দিনগুলোয় এই ভাইরাস হুবেই প্রদেশের উহান শহরের বন্য প্রাণীর একটি বাজারে শনাক্ত হয়। ধারণা করা হয়, পরে সেখান থেকে ভাইরাসটি প্রাণী থেকে মানবদেহে প্রবেশ করে। তবে বিশেষজ্ঞরা এখন মনে করছেন, উহান থেকে ভাইরাসটির সূত্রপাত না হয়ে সেখানে এটির শুধু বিস্তার লাভ হয়ে থাকতে পারে।

গবেষকেরা এ ইঙ্গিত দিয়েছেন যে মানুষকে সংক্রমিত করতে সক্ষম এই ভাইরাস দশকের পর দশক ধরে অশনাক্তকৃত থেকে বাদুড়ের মাধ্যমে ছড়াতে পারে।

গত বছরের ডিসেম্বরে উহান সেন্ট্রাল হাসপাতালের একজন চিকিৎসক লি ওয়েনলিয়াং সহকর্মী চিকিৎসকদের এক নতুন রোগের সম্ভাব্য সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়া বিষয়ে সতর্ক করার চেষ্টা করেন। তবে পুলিশ ‘অসত্য মন্তব্য’ করা থামাতে বলে ও ‘গুজব ছড়ানো’ নিয়ে তদন্ত শুরু করে। পরে একই শহরের হাসপাতালে রোগীদের চিকিৎসা দেওয়ার সময় এ ভাইরাসে সংক্রমিত হয়ে ফেব্রুয়ারিতে মারা যান তিনি। এরপর এপ্রিলে নানান সন্দেহ ও অভিযোগ ওঠে, ভাইরাসটি উহান শহরের একটি গবেষণাগার থেকে ছড়িয়ে থাকতে পারে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে