খাদ্যনিরাপত্তা নিশ্চিতের দাবিতে রাজশাহীতে ওয়ার্কার্স পার্টির সমাবেশ-স্মারকলিপি প্রদান

0
36

মানুষের খাদ্যনিরাপত্তা নিশ্চিত করার দাবি নিয়ে রাজশাহীতে সমাবেশ করেছে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি। পরে এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের দাবি জানিয়ে জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের মাধ্যমে খাদ্যমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি দেয়া হয়েছে।

কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে মহানগরীর কোর্ট এলাকায় খাদ্য নিয়ন্ত্রকের কার্যালয় ঘেরাও করে সমাবেশ করেন জেলা ও মহানগর ওয়ার্কার্স পার্টির নেতাকর্মীরা। সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন ওয়ার্কার্স পার্টির রাজশাহী জেলা সভাপতি রফিকুল ইসলাম পিয়ারুল।

বক্তব্য দেন- ওয়ার্কার্স পার্টির রাজশাহী মহানগরের সাধারণ সম্পাদক দেবাশিষ প্রামানিক দেবু, জেলার সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক আশরাফুল হক তোতা, মহানগর সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য আবদুল মতিন, নাজমুল করিম অপু, মনিরুজ্জামান মনির, ছাত্রমৈত্রীর মহানগর সাধারণ সম্পাদক সম্রাট রায়হান প্রমুখ।

এ সময় চালকল মালিকদের সিন্ডিকেট ভেঙে দিয়ে চালের সরবরাহ ও বাজারদর স্বাভাবিক রাখার দাবি জানানো হয়। বক্তারা বলেন, অসাধু চালকল মালিকরা দেশের মানুষকে জিম্মি করে দাম বাড়িয়ে দেন। তারা কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করে দেশকে অস্থিতিশীল করে তোলেন। তাদের বিরুদ্ধে শক্ত পদক্ষেপ নিতে হবে। তা না হলে দেশে খাদ্যের সংকট না থাকলেও মানুষের মুখে খাবার জুটবে না।

তারা বলেন, দেশের সাধারণ মানুষরা চালকল মালিকদের সিন্ডিকেটের কাছে বন্দি হয়ে গেছে। দেশীয় কালোবাজারী মজুতদার অপশক্তি বিভিন্ন অজুহাতে সাধারণ মানুষের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে দাম বৃদ্ধি করে অমানবিকতার পরিচয় দিয়েছে। কালোবাজারী অশুভ শক্তি অধিদপ্তর থেকে মন্ত্রণালয়ে থাকায় কোনো পদক্ষেপ কাজে আসছে না। বক্তারা আরও বলেন, কোভিড-১৯ বিশ্বব্যাপী মানুষের জীবনকে বিপর্যস্ত করে ফেলেছে। ইতোমধ্যে দেশে করোনাভাইরাসের কারণে খাদ্যাভাব দেখা দিয়েছে। এর পেছনে দায়ি চালের মূল্যবৃদ্ধির সেই সিন্ডিকেট। সমাবেশ থেকে এই সিন্ডিকেটকে দমন করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানানো হয়।

সমাবেশ শেষে ওয়ার্কার্স পার্টির নেতৃবৃন্দ চালের মূল্যবৃদ্ধি রোধ ও জনগণের খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতসহ ৮ দফা দাবিতে জেলার খাদ্য নিয়ন্ত্রক জিএম ফারুক হোসেন পাটওয়ারির কাছে খাদ্যমন্ত্রী বরাবর একটি স্মারকলিপি দেন। দাবিগুলো হলো- চালকল মালিকদের চুক্তিমত চাল দিতে বাধ্য করা, মজুত বিরোধী আইন প্রয়োগ, চালের বাজারে সক্রিয় সিন্ডিকেট কঠোরহস্তে দমন, কৃষকদের উপযুক্ত মূল্য ও ধান চাল ক্রয়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ, উপজেলায় প্যাডিসাইলো নির্মাণ, কৃষকদের সাশ্রয়ী সুদে ঋণ, বছরব্যাপী ১০ টাকা কেজি মূল্যে চাল বিতরণ ও সারা দেশে রেশনিং ব্যবস্থা চালু করা।

স্মারকলিপি দেয়ার সময় আরও উপস্থিত ছিলেন- ওয়ার্কার্স পার্টির মহানগর সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য সিরাজুর রহমান খান, নগর কমিটির সদস্য ও সিটি করপোরেশনের ৭ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মতিউর রহমান মতি, কাশিয়াডাঙা থানা কমিটির সভাপতি শামীম ইমতিয়াজ, বোয়ালিয়া থানা (পূর্ব) সাধারণ সম্পাদক সিতানাথ বণিক, যুবমৈত্রীর মহানগর সাধারণ সম্পাদক আবদুল খালেক বকুল, ছাত্রমৈত্রীর রাজশাহী জেলার যুগ্ম আহ্বায়ক হাফিজুর রহমান প্রমুখ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে