জাতিসংঘ সদর দফতরেও আতঙ্ক, করোনাভাইরাসে কর্মসূচি বাতিল

0
109

জাতিসংঘেও ঢুকে পড়েছে করোনা। নিউইয়র্কে সংস্থার সদরদফতর এলাকায় ছড়িয়ে পড়েছে আতঙ্ক। ইতিমধ্যে একজন আক্রান্ত হয়েছেন। এ ঘটনার পর সংশ্লিষ্ট এলাকায় প্রতিরক্ষামূলক পদক্ষেপ জোরদার করা হয়েছে।

জাতিসংঘের শিডিউলে থাকা সব বৈঠক ও অনুষ্ঠান কর্মসূচি বাতিল করা হয়েছে। সদরদফতরে নিযুক্ত সদস্য দেশগুলোর নিজ নিজ মিশনকে তাদের কূটনীতিক সংখ্যা জরুরিভিত্তিতে কমানোর আহ্বান জানানো হয়েছে।

কয়েক হাজার স্টাফের অর্ধেককেই বাসা-বাড়িতে বসে কাজ করার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের ৫০টি রাজ্যের ৪৬টিই করোনায় আক্রান্ত। সরকারি হিসাবে শুক্রবার পর্যন্ত মোট আক্রান্ত ১৬০০। এর মধ্যে বাণিজ্যিক শহর নিউইয়র্কে ৯৩ স্থানীয় বাসিন্দাসহ আক্রান্ত হয়েছেন ২৩০ জন। শনাক্তকরণ প্রক্রিয়া চলছে জোরসে।

রয়টার্স জানিয়েছে, পরীক্ষায় করোনা পজিটিভ হয়েছেন জাতিসংঘে ফিলিপাইন মিশনের এক শীর্ষ নারী কূটনীতিক। বিশ্বের সর্বোচ্চ সংগঠনটির কোনো সদস্যদের করোনা আক্রান্তের ঘটনা এটাই প্রথম।

কিরা আজুসেনা নামের কূটনীতিক ফিলিপাইন মিশনের ১২ কূটনীতিকের একটি দলের প্রধান। আক্রান্ত হওয়ার আগে সম্প্রতি তিনি যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা রাজ্যে সফর করেছেন। এ কূটনীতিকের সংক্রমণের খবর বৃহস্পতিবার প্রকাশ হওয়ার পরই নিউইয়র্কে সংস্থার সদরদফতরে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। ফলে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে সংস্থাটির ফিলিপিন্স মিশন।

ফিলিপাইনে জাতিসংঘের ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রদূত কিরা আজুসেনা বৃহস্পতিবার এক লিখিত বিবৃতিতে জানান, ‘আজ থেকে জাতিসংঘের ফিলিপাইন মিশন বন্ধ থাকবে। এখানে কর্মরত সব কর্মকর্তা ও কর্মচারীকে স্বেচ্ছা কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।’

তিনি আরও জানান, তাদের মধ্যে কারও দেহে করোনাভাইরাস আক্রান্ত হওয়ার লক্ষণ দেখা দিলে তিনি যেন দ্রুত চিকিৎসকের শরণাপন্ন হন। আমরা ধরে নিচ্ছি যে আমরা সবাই এতে সংক্রামিত হয়েছি।’

ওইদিনই সদরদফতরে শিডিউলে থাকা ছোট-বড় সব বৈঠক ও অনুষ্ঠান বাতিল করা হয়। সংস্থার মুখপাত্র স্টিফেন দুজারিক এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, মহাসচিব আন্তনিও গুতেরেস জাতিসংঘের সব অনুষ্ঠান বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। আগামী ১৬ মার্চ থেকে এপ্রিলের শেষ পর্যন্ত এ নির্দেশনা বহাল থাকবে।

মন্ত্রীর গালে চুমু দিয়ে আক্রান্ত স্পেনের রানী : প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের প্রভাব পড়েছে বিশ্বের রাজপরিবারগুলোয়। দেশজুড়ে মৃত্যু ও আক্রান্তের বাড়বাড়ন্তের মধ্যে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন স্পেনের রানী লেতিজিয়া।

সরকারের এক নারী মন্ত্রীর গালে চুমু দেয়ায় রানীর দেহে ভাইরাসের সংক্রমণ হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। গত সপ্তাহে রাজধানী মাদ্রিদের এক অনুষ্ঠানে মন্ত্রী আইরিন মনতেরোর সঙ্গে করমর্দন করে সাবেক সাংবাদিক রানী লেতিজিয়া। একটি ছবিতে দেখা যাচ্ছে, ওই অনুষ্ঠানে রানী ও মন্ত্রী একে অপরের গালে ঐতিহ্যবাহী ‘স্প্যানিশ কিস’ দিচ্ছেন।

চলতি সপ্তাহে মন্ত্রিসভার সব সদস্যের করোনা পরীক্ষা করা হয়। তাতে করোনা পজিটিভ হন মনতেরো। এরপর পরীক্ষা করা হয় রাজা ফিলিপ ও রানী লেতিজিয়াকে। খবর রয়টার্সের।

ইতালির মতো স্পেনেও লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা। এখন পর্যন্ত ৩ হাজার ৪ জন আক্রান্ত হয়েছে। আক্রান্তদের বেশিরভাগই রাজধানীর অধিবাসী। মাত্র ২৪ ঘণ্টা আগেও এ সংখ্যা ছিল মাত্র ৮০০। মৃত্যু হয়েছে ৮৬ জনের। আগের দিনও এ সংখ্যা ছিল মাত্র ৪৭।

সংক্রমণ ঠেকাতে সোমবার থেকে দেশটির সব স্কুল ও বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। কাতালোনিয়া এবং গ্যালিসিয়ার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো শনিবার থেকে বন্ধ হচ্ছে। বাকিগুলো বন্ধ হবে সোমবার থেকে।

আর মাদ্রিদ ও লা রিওজার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো আগে থেকেই বন্ধ রয়েছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো অন্তত দুই সপ্তাহ বন্ধ থাকবে। প্রয়োজনে বন্ধের এ মেয়াদ আরও বাড়ানো হতে পারে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে