বাংলাদেশের সফর নিয়ে পাকিস্তানকে এক হাত কোহলির কোচের

0
171

রাজ কুমার শর্মার নিজের একটা বড় পরিচয় আছে। কখনো ভারতীয় ক্রিকেট দলে না খেললেও এক সময় দিল্লির হয়ে খেলেছেন রঞ্জি ট্রফি। নিজের ক্রিকেটার সত্তাকে ছাপিয়ে তাঁর বড় পরিচয় তিনি ভারতীয় অধিনায়ক বিরাট কোহলিকে তাঁর ছেলেবেলায় ক্রিকেট শিখিয়েছেন হাতেকলমে। সেই রাজ কুমার বাংলাদেশের সফর প্রসঙ্গে পাকিস্তানকে রীতিমতো ধুয়ে দিয়েছেন।

এ মাসেই পাকিস্তান সফরে যাওয়ার কথা বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের। তবে পাকিস্তানে কেবল টি-টোয়েন্টি সিরিজটাই খেলতে চায় বাংলাদেশ। টেস্ট সিরিজের ব্যাপারে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) অপেক্ষার নীতি অনুসরণে। পাকিস্তান সর্বোচ্চ নিরাপত্তার ব্যবস্থা করলেও বিসিবি চিন্তিত পাকিস্তানের মাটিতে খেলার পরিবেশ নিয়ে। বাংলাদেশ ক্রিকেটের নীতিনির্ধারকেরা চায় আগে টি-টোয়েন্টি সিরিজটা খেলে নিরাপত্তা ব্যবস্থা ও খেলার পরিবেশ সম্বন্ধে একটা ধারণা নিয়ে টেস্ট সিরিজ খেলতে যাওয়ার ব্যাপারে ভাবা।

পাকিস্তান স্বাভাবিকভাবেই বিসিবির এমন ভাবনা মানতে চাচ্ছে না। পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের (পিসিবি) সাফ কথা, পাকিস্তান এখন নিরাপদ, বাংলাদেশকে পাকিস্তানেই খেলতে হবে। তারা উদাহরণ টানছে শ্রীলঙ্কান ক্রিকেট দলের সফর নিয়ে। উদাহরণ টানছে বাংলাদেশেরই নারী ক্রিকেট দলে ও অনূর্ধ্ব-১৬ ছেলেদের দলের পাকিস্তান সফরের।

এদিকে, সম্প্রতি পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কোরেশির অভিমত, বাংলাদেশ পাকিস্তান সফরের ব্যাপারে রাজি থাকলেও ভারতের চাপেই নাকি এখন অন্য কথা বলছে। বিরাট কোহলির কোচ রাজ কুমার সমালোচনা করেছেন মাহমুদ কোরেশির মন্তব্যের, ‘ভারতকে দোষারোপ করা পাকিস্তানের অনেক পুরোনো অভ্যাস। কোনো দেশ আদৌ পাকিস্তানের মাটিতে গিয়ে খেলবে কিনা, সে বিষয়ে পরামর্শ দেওয়ার ইচ্ছা ভারতের নেই।’

তিনি পাকিস্তানকে ক্রিকেট ব্যবস্থাপনার বিষয়টি ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিসিআই) কাছ থেকে শেখার পরামর্শ দিয়েছেন, ‘আমি মনে করি পাকিস্তান ক্রিকেট ব্যবস্থাপনার বিষয়টি বিসিসিআইয়ের কাছ থেকে শিখতে পারে।’

গত পরশু বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন আহমেদ ঢাকায় সাংবাদিকদের বলেছেন, এ মুহূর্তে বাংলাদেশ কিছুতেই পাকিস্তানে গিয়ে টেস্ট খেলবে না। তবে টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলতে সমস্যা নেই তাদের। পিসিবি দেরি করলে ক্ষতিটা তাদেরই, ‘পাকিস্তান কেন রাজি হচ্ছে না (টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলতে) বা দেরি করছে, ঠিক বুঝতে পারছি না। হয় তাদের বোঝার ভুল, না হলে আমরা তাদের বোঝাতে পারছি না! তাদের দ্রুত সিরিজটা আয়োজন করা উচিত। না হলে পরে তো এটাও তারা পাবে না! আমাদের একটা প্রস্তুতির ব্যাপার আছে। ওরা ১৭ জানুয়ারি বললে পরের দিন তো আর দল পাঠানো যাবে না।’

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে