লক্ষ্মীপুরে এতিমখানায় অগ্নিকাণ্ড

0
66

স্টাফ রিপোর্টার: লক্ষ্মীপুরে অগ্নিকাণ্ডে একটি এতিমখানার খাবার ঘরসহ আসবাবপত্র পুড়ে গেছে। শুক্রবার ভোরে সদর উপজেলার আলহাজ মাওলানা আহম্মদ উল্লাহ ছাহেব মাদ্রাসা কমপ্লেক্স ও এতিমখানায় এ ঘটনা ঘটে।

মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ ও স্থানীয়রা জানান, ভোর ৩টা ৪৫ মিনিটে প্রতিদিনের মতো মাদ্রাসার শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা ফজরের নামাজের জন্য ঘুম থেকে ওঠে। এ সময় খাবারঘরে আগুন জ্বলতে দেখা যায়। এর আগে মাদ্রাসার বাইরে অজ্ঞাত মানুষের কথাবার্তাও শোনা যায়। পরে শিক্ষার্থীদের সহযোগিতায় শিক্ষকরা আগুন নেভাতে চেষ্টা করেন। একপর্যায়ে মাদ্রাসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক শাহ মোহাম্মদ মনির হোসেন চন্দ্রগঞ্জ থানা পুলিশকে আগুনের বিষয়টি অবহিত করেন। এসআই সাইফুল ইসলাম মাদ্রাসায় এসে ফায়ার সার্ভিসে খবর দেন। পরে লক্ষ্মীপুর ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। এর আগেই চাল-তরকারি, ফ্রিজ ও আসবাবপত্রসহ খাবারঘরটি পুড়ে যায়।

মাদ্রাসার নিরাপত্তা দেয়ালের ওপর দিয়ে পেট্রল ঢেলে আগুন লাগিয়ে দেয়া হয়েছে বলে দাবি মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষের। মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষের অভিযোগ, প্রতিষ্ঠানের পার্শ্ববর্তী সাইফ উদ্দিন ও আবদুল মালেকদের সঙ্গে রাস্তা নির্মাণ নিয়ে মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষের দীর্ঘদিনের বিরোধ রয়েছে। সাইফ উদ্দিনরা মাদ্রাসার জমির ওপর দিয়ে রাস্তা নির্মাণ করার চেষ্টা করে। এতে বাধা দিলে মাদ্রাসা পরিচালক মনিরের ওপর একাধিকবার হামলা চালানো হয়। মাদ্রাসার দুটি গাছ রাস্তা নির্মাণের জন্য সাইফ উদ্দিনরা জোরপূর্বক কেটে ফেলে। এসব ঘটনায় মাদ্রাসার পরিচালক মনির বাদী হয়ে আদালতে দুটি মামলা করেছেন। এর মধ্যে একটি মামলা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) নোয়াখালীকে তদন্ত দিয়েছেন আদালত। মাদ্রাসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক শাহ মোহাম্মদ মনির হোসেন বলেন, কে বা কারা আগুন দিয়েছে আমরা দেখিনি। তবে রাস্তা নির্মাণ নিয়ে সাইফ উদ্দিন ও আবদুল মালেকদের সঙ্গে বিরোধ রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে শত্রুতার জের ধরে তারাই আগুন লাগিয়ে মাদ্রাসার খাবারঘরটি পুড়িয়ে দিয়েছে।

অভিযোগ অস্বীকার করে সাইফ উদ্দিন বলেন, আমি ঢাকায় আছি। মাদ্রাসায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনাটি আমার জানা নেই। আমরা মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে টাকা পাওনা আছি। ওই টাকা চাওয়ায় আমাদের বিরুদ্ধে বিভিন্নভাবে মিথ্যা অভিযোগ আনছে মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ।

চন্দ্রগঞ্জ থানার এসআই সাইফুল ইসলাম বলেন, খবর পেয়ে তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। বিস্তারিত ফায়ার সার্ভিসের প্রতিবেদন পেলে জানা যাবে।

লক্ষ্মীপুর ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার মো. ওয়াসি আজাদ বলেন, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত হতে পারে। তদন্তের পর আসল তথ্য জানা যাবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে