সার্কের স্থবিরতা কাটাতে সহায়ক হবে ভিডিও কনফারেন্স

0
94

করোনাভাইরাস মোকাবেলায় সম্মিলিত কর্মপন্থা ঠিক করতে সার্কভুক্ত আট দেশের সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধানদের ভিডিও কনফারেন্সকে ইতিবাচক হিসেবে দেখছেন কূটনৈতিক বিশেষজ্ঞরা। তারা মনে করেন, করোনাভাইরাসের মতো সংকটময় মুহূর্তে এমন উদ্যোগ সার্কের স্থবিরতা কাটাতে কিছুটা হলেও সহায়ক হবে।

তারা আশা প্রকাশ করেন, করোনার মতো শুধু সংকটকালে নয়, এ অঞ্চলের মানুষের আর্থসামাজিক উন্নয়নে সার্ক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। রোববার সার্কভুক্ত দেশগুলোর সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধানদের ভিডিও কনফারেন্সের পর যুগান্তরকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তারা এসব কথা বলেন।

এ বিষয়ে সাবেক রাষ্ট্রদূত হুমায়ুন কবীর বলেন, ভিডিও কনফারেন্সটি হচ্ছে সংকটকালে সবার সাড়া দেয়া। করোনা নিয়ে যখন সারা বিশ্ব ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে, তখন সার্কভুক্ত দেশগুলোর সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধানদের এমন আলোচনা ইতিবাচক।

এর মাধ্যমে আমরা এক দেশ আরেক দেশকে তথ্য আদান-প্রদান এবং সহযোগিতার হাত বাড়ানোর সুযোগ তৈরি হচ্ছে। তিনি বলেন, করোনাভাইরাস সংক্রমণের মতো সংকটকালে নেয়া এ উদ্যোগ যেন থেমে না যায়, সেই প্রত্যাশা করছি। এ অঞ্চলের মানুষের ভাগ্যোন্নয়নের ক্ষেত্রে সার্ক উদ্যোগ নিলে খুশি হব। আমি মনে করি, এ উদ্যোগের মধ্য দিয়ে সার্কের স্থবিরতায় পরিবর্তন আসতে পারে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সাবেক সচিব তৌহিদ হোসেন বলেন, দীর্ঘদিন ধরে সার্ক নেতাদের অনেকের মধ্যে মুখ দেখাদেখি ও কথা বলা একপ্রকার বন্ধ ছিল। সার্কও একপ্রকার মৃত ছিল। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে আলোচনার মধ্য দিয়ে এ প্রতিষ্ঠানটি জেগে উঠতে পারে বলে আশা করতেই পারি।

করোনাভাইরাস সংক্রমণের মতো ক্রাইসিস সময়ে এ ধরনের যৌথ উদ্যোগ ইতিবাচক বার্তা বহন করছে। আমরা আশা করি, এ অঞ্চলের মানুষের মর্যাদা প্রতিষ্ঠা, সামাজিক উন্নয়নসহ যে উদ্দেশ্যে সার্ক প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল, তা পূরণে এগিয়ে যাবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে